Ahmed Deedat


শেখ আহমেদ হোসাইন দীদাত (১লা জুলাই, ১৯১৮ – ৮ই আগষ্ট ২০০৫) এর জন্ম ভারতের গুজরাট প্রদেশের সুরাট জেলায়। দীদাতের পিতা ছিলেন একজন দর্জি। তার বয়স যখন মাত্র ৯ তখন তিনি পিতার সাথে থাকার জন্য ভাগ্যের অন্বেষণে, সাউথ আফ্রিকা যান।
দীদাত সাউথ আফ্রিকা যাওয়ার কয়েকমাস পরেই তার মা ইন্তেকাল করেন। পড়াশোনার প্রতি প্রবল আগ্রহ এবং মেধা থাকা সত্ত্বেও দারিদ্র তাকে standard class-6 এর পরে আর প্রথাগত শিক্ষা নিতে দেয়নি। জীবিকার জন্য মাত্র পনের বছর বয়সে একজন মুসলিম
মালিকের ফার্নিচারের দোকানে চাকুরি করা শুরু করেন।

শেখ দীদাতের দোকানটি ছিলো নাতাল সাউথ আফ্রিকার একটি খ্রীষ্টান সেমিনারির পাশেই। ট্রেইনি খ্রীষ্টান মিশনারিরা দীদাতের দোকানে প্রায়ই যেতো এবং বিভিন্নভাবে ইসলাম ও রাসূলুল্লাহ্‌ (সাঃ) সম্পর্কে কটাক্ষ করে মন্তব্য করতো। এদের অপপ্রচারকে মোকাবেলা করার জন্যই শেখ দীদাত
তুলনামূলক ধর্মতত্ত্ব এবং ধর্ম গ্রন্থ বিষয়ে আগ্রহী হয়ে উঠেন। একদিন ফার্নিচারের দোকানের বেসমেন্টে বইপত্র খুঁজতে গিয়েই তিনি আল্লামা রাহমাতুল্লাহ কীরানবীর বিখ্যাত বই ইযহারুল হক (সত্যের প্রকাশ) এর সন্ধান পান যা তাকে প্রথম যুক্তি দিয়ে ইসলামের বিরুদ্ধে অপপ্রচার মোকাবেলা
করার ধারণা দেয়। তার জীবণের প্রথম বাইবেলটি কিনেন এই সময়ই। শুরু হয় তার পথ চলা।

১৯৪২ সালে দীদাত তার প্রথম লেকচারটি দেন মাত্র পনরজন দর্শকের সামনে ডারবান মুভি থিয়েটার (আভালন সিনেমা হল) হলে যার বিষয় ছিলো “Muhammad(PBUH): Messenger of Peace”।
১৯৫৭ সালে শেখ দীদাত তার ঘনিষ্ট বন্ধু তাহির রাসূল এবং গোলাম হোসেন ভাংকরকে নিয়ে Islamic Propagation Center (IPCI) নামের একটি সংগঠন গড়ে তোলেন। পরবর্তীতে ১৯৫৮ সালে একজন মুসলিম দাতার অর্থ সাহায্যে
As-Salaam Educational Institute নামের আরেকটি সংগঠন গড়ে তোলেন। এখান থেকে শেখ আহমেদ দীদাতের লেখা ২০ টি বইয়ের লক্ষ লক্ষ কপি সারা পৃথিবীতে বিনামূল্যে বিতরন করা হয়। তার বইগুলো আরবী, উর্দু, বাংলা,
রাশিয়ান, চীনা, জাপানীজ, ফ্রেঞ্চ, মালয়, জুলুসহ আরো অসংখ্য ভাষায় অনূদিত হয়।

ইসলামের দাওয়াতের কাজে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি ১৯৮৬ সালে বিখ্যাত কিং ফয়সাল এওয়ার্ডে ভূষিত হোন। তিনি সৌদী আরব, মিশর, যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, পাকিস্তান, মালদ্বীপ, সুইডেন, ডেনমার্ক, কানাডা, অস্ট্রেলিয়া সহ অসংখ্য দেশ ভ্রমণ করে
বক্তৃতা প্রদান করেন এবং বিভিন্ন খ্রীষ্টান পন্ডিতদের সাথে সরাসরি দর্শকদের উপস্থিতিতে বিতর্কে অংশ নেন। ২০০৫ সালের ৮ই আগষ্ট শেখ দীদাত তার নিজ বাড়িতে ইন্তেকাল করেন। তাকে ভেরুলাম গোরস্থানে দাফন করা হয়।

[সংগৃহীত, সংকলিত somewhereinblog dot net/blog/nafaji/29378644]


ইসলাম ধর্মে যিশুখ্রিষ্ট

Islam dhorme Jishukhristo

1.52 min

51 mb

64 kbps

:: Mf

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s